অবশেষে ঘাতক ইজিবাইক ড্রাইভারকে গ্রেফতার করলেন সিংগাইর থানা পুলিশ ।

বিপ্লবঃ মানিকগঞ্জের সিংগাইর থানার ধল্লা ইউনিয়নের বিন্নাডাঙ্গী বাসস্ট্যান্ডের পার্শ্ববর্তী এস্পায়ার গার্মেন্টস কর্মীকে ব্যাটারি চালিত ইজিবাইকের চাপাই মৃত্যুর ঘটনায়, আসামিকে অবশেষে গ্রেফতার করতে সক্ষম হলেন সিংগাইর থানা পুলিশ ।

গত (২৮ আগস্ট) সকাল আনুমানিক ৭টা ৪০ মিনিটের দিকে, এস্পায়ার গার্মেন্টসে কাজে যোগদান করার জন্য রাস্তার দক্ষিণ পাশ থেকে উত্তর পাশে যাওয়ার সময়, একটি ব্যাটারিচালিত ইজিবাইক, গার্মেন্টস কর্মী মোসাম্মৎ হাসিনা বেগম (৩৫) কে চাপা দিয়ে, ইজিবাইক টি রেখেই ঘাতক ড্রাইভার দ্রুত পালিয়ে যায় ।

তারপর, হাসিনা বেগম কে তাহার সহকর্মীরা দ্রুত তেঁতুলঝোড়া এলাকায় স্ট্যান্ডার্ড হাসপাতলে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক হাসিনা বেগমকে মৃত ঘোষণা করেন ।

মৃত হাসিনা বেগম (৩৫) স্বামী মোঃ মোস্তফা আলী, তার গ্রামের বাড়ি ,আর,জি মিলনপুর, থানা-বীরগঞ্জ, জেলা দিনাজপুর,তিনি সাভারের তেঁতুলঝোড়া ইউনিয়নের , তেঁতুলঝোড়া এলাকায় , বাসা ভাড়া থাকতেন বলে জানা যায় ।

এ বিষয়ে মৃত হাসিনা বেগমের স্বামী গত (২৮ আগস্ট) সন্ধ্যায় মোঃ মোস্তফা আলী বাদী হয়ে সিংগাইর থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।

ইজিবাইক চালককে খুঁজে না পাওয়ায় প্রায় ১৮ দিন যাবত ইজিবাইক ভাষা শহীদ রফিক সেতুর পশ্চিম পাশে ধল্লা পুলিশ ফাঁড়িতেই রাখা হয়েছিল।

তারপর, সার্কেল এসপি রেজাউল হকের দিকনির্দেশনা ও সিংগাইর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সফিকুল ইসলাম মোল্লার সহযোগিতায়, পুলিশের একটি চৌকস টিম ইনচার্জ এস,আই মাহফুজুল হাসান ও এস,আই ইমরান দীর্ঘ ১৮ দিন যাবত বিভিন্ন কৌশল অবলম্বন করে অবশেষে গ্রেফতার করতে সক্ষম হন সেই ঘাতক চালক আসামি, মোঃ বাবুল হোসেন (৩৫) কে ।

আসামি বাবুল হোসেনের বর্তমান ঠিকানা , সিংগাইর থানার চর উলাইল এলাকার মোঃ নুরুল ইসলামের ছেলে, পূর্বে তারর স্থায়ী বাড়ি ছিল , চাঁদপুরের মতলব থানার ফরাজিকান্দি বড় হলদিয়া গ্রামের ছেলে ।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে সিংগাইর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সফিকুল ইসলাম মোল্লা বলেন, সিংগাইর থানার সার্কেল অফিসার জনাব মোঃ রেজাউল হক স্যারের দিকনির্দেশনায় আমরা কাজ করে আসছি, সিংগাইর থানার অফিসার ইনচার্জ এর নেতৃত্বে সকল অফিসার ফোর্স যথাযথ তাদের দায়িত্ব পালন করায় আসামিকে আমরা দ্রুত ধরতে সক্ষম হয়েছি বলেও জানান তিনি।