করোনাভাইরাসের টিকার জন্য রেজিস্ট্রেশন করেছেন খালেদা জিয়া

করোনাভাইরাসের টিকার জন্য রেজিস্ট্রেশন করেছেন বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। গত ৮ জুলাই সুরক্ষা ওয়েবসাইট অ্যাপসের মাধ্যমে তার রেজিস্ট্রেশন করা হয়।

গণমাধ্যমে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন খালেদা জিয়ার ব্যক্তিগত চিকিৎসক টিমের সদস্য অধ্যাপক এ জেড এম জাহিদ হোসেন।

তিনি বলেন, ‘করোনাভাইরাসের সংক্রমণ থেকে সেরে ওঠার পরিপ্রেক্ষিতে কোভিড-১৯ এর টিকার জন্য রেজিস্ট্রেশন করেছেন খালেদা জিয়া। আলহামদুলিল্লাহ, ম্যাডাম টিকার জন্য রেজিস্ট্রেশন করেছেন। গত ৮ জুলাই সুরক্ষা ওয়েবসাইট অ্যাপসের মাধ্যমে তার রেজিস্ট্রেশন করা হয়। এখন এসএমএস এলে পরবর্তী ব্যবস্থা নেয়া হবে। রেজিস্ট্রেশনের সময় টিকার স্থান হিসেবে মহাখালী ন্যাশনাল গ্যাস্ট্রোলিভার ইনস্টিটিউট অ্যান্ড হাসপাতাল লেখা হয়েছে।’

এই চিকিৎসক আরও বলেন, ‘বিএনপি চেয়ারপারসন এমনিতে হৃদরোগ, কিডনি, ফুসফুসের নানা জটিলতায় ভুগছেন। তার অবস্থা আগের মতোই। এ ছাড়া তিনি জনপ্রিয় রাজনৈতিক নেত্রী ও তিনবারের প্রধানমন্ত্রী, তাই কোথাও গেলে ব্যাপক মানুষের সমাবেশ ঘটে। এ ক্ষেত্রে তার টিকা বাসায় দেয়া যায় কি না সে বিষয়টি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের বিবেচনায় নেয়া উচিত।’

গত ১৪ এপ্রিল খালেদা জিয়া করোনায় আক্রান্ত হন। প্রথম তিন সপ্তাহ তার চিকিৎসা গুলশানে চলে। পরে পোস্ট-কোভিড জটিলতা দেখা দিলে তাকে ২৭ এপ্রিল এভারকেয়ার হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে হৃদরোগ বিশেষজ্ঞ শাহাবুদ্দিন তালুকদারের নেতৃত্বে ১০ সদস্যের মেডিকেল বোর্ড গঠন করা হয়, যা এখনও কার্যকর রয়েছে।

এভারকেয়ার হাসপাতালে দীর্ঘ ৫৩ দিন চিকিৎসা শেষে গত ১৯ জুন ৭৬ বছর বয়সী বিএনপি চেয়ারপারসন গুলশানের ফিরোজায় ফেরেন। এভারকেয়ার হাসপাতালে ওই সময়ে করোনা ঝুঁকি দেখা দেয়ায় তাকে বাসায় স্থানান্তর করে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে।