চলতি মাসের মধ্যে ভিটামিন-এ ক্যাম্পেইন অনুষ্ঠিত হবে। ডা. আবুল কালাম আজাদ

সারাদেশে বহুল আলোচিত ভিটামিন-এ ক্যাম্পেইন চলতি মাসেই অনুষ্ঠিত হবে। রাতকানা রোগ প্রতিরোধে জাতীয় পুষ্টি কর্মসূচির আওতায় আজ (শনিবার) দেশব্যাপী ৬ থেকে ১১ মাস বয়সী এবং ১২ থেকে ৫৯ মাস বয়সী শিশুদের ভিটামিন-এ ক্যাপসুল খাওয়ানোর দিনক্ষণ নির্ধারিত ছিল।

কিন্তু শেষ মুহূর্তে ভারতের একটি কোম্পানি থেকে আমদানিকৃত ভিটামিন-এ ক্যাপসুলের গুণগত মান নিয়ে প্রশ্ন ওঠায় স্বাস্থ্য অধিদফতর কর্মসূচিটি স্থগিত করে। নিয়মিত চলমান জাতীয় এই কর্মসূচি হঠাৎ স্থগিত হওয়ার পর থেক এ নিয়ে নানা অনিয়ম ও দুর্নীতির তথ্য প্রকাশিত হচ্ছে।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল কালাম আজাদ আজ (শনিবার) দুপুরে সাংবাদিক দের সঙ্গে আলাপকালে জানান, ভিটামিন-এ নিয়ে অভিভাবকদের আতঙ্কিত হওয়ার কোনো কারণ নেই। চলতি মাসের মধ্যে ভিটামিন-এ ক্যাম্পেইন অনুষ্ঠিত হবে। তাদের ভিটামিন-এ ক্যাপসুলের সরবরাহ রয়েছে।

তিনি জানান, জাতীয় পুষ্টি কর্মসূচির আওতায় প্রতিবছর দু’বার দুই রাউন্ডে ৬ থেকে ১১ মাস বয়সী শিশুদের নীল এবং ১২ থেকে ৫৯ মাস বয়সী শিশুদের লাল রঙের ভিটামিন–এ ক্যাপসুল খাওয়ানো হয়। মূলত রাতকানা রোগ প্রতিরোধের জন্য ১৯৯৪ সাল থেকে দেশের শিশুদের ভিটামিন-এ ক্যাপসুল খাওয়ানো হয়।

তিনি আরও জানান, ভারতীয় প্রতিষ্ঠানের ক্যাপসুলের গুণগত মান নিয়ে প্রশ্ন ওঠায় তদন্ত কমিটি গঠিত হয়েছে। তাই তদন্ত কমিটির প্রতিবেদন না পাওয়া পর্যন্ত ওই প্রতিষ্ঠানের ক্যাপসুল শিশুদের খাওয়ানো হবে না। দেশীয় প্রতিষ্ঠানের সরবরাহকৃত ক্যাপসুল দিয়ে এই প্রচারাভিযান চলবে বলে মন্তব্য করেন তিনি।