চাঞ্চল্যকর হিরু হত্যা মামলায় যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত পলাতক আসামী ১১ বছর পর গ্রেফতার ।

স্টাফ রিপোর্টার: মানিকগঞ্জ জেলার সদর থানাধীন গঙ্গাধর পট্টি এলাকা হতে চাঞ্চল্যকর হিরু হত্যা মামলায় যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত আসামী আঃ রহমান(৩২) কে গ্রেফতার করা হয়েছে ।

মানিকগঞ্জ জেলার সদর থানাধীন গঙ্গাধর পট্টি এলাকায় ২২ আগস্ট ২০২২ তারিখ বিকাল ৫.৩০ মিনিটে  অভিযান পরিচালনা করে দীর্ঘ ১১ বছর যাবত পলাতক যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত আসামী আঃ রহমান’কে গ্রেফতার করা হয়। সাজা এড়াতে আঃ রহমান ছদ্মবেশে পালিয়ে বেড়ায় ১১ বছর। কখনও প্রবাস জীবন আবার কখনও সি এন জি, বাস কিংবা ট্রাক চালক।

সিংগাইর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শফিকুল ইসলাম মোল্লা জানান, মানিকগঞ্জ জেলা পুলিশ সুপার মোহাম্মদ গোলাম আজাদ খান, বিপিএম(বার) স্যারের নির্দেশনায় এবং সিংগাইর থানার সার্বিক তত্ত্বাবধানে এএসআই মোঃ ইজ্জত আলী ও র‍্যাব-৪, সিপিসি-৩, মানিকগঞ্জ এর সহায়তায় আঃ রহমান’কে গ্রেফতার করা হয়।

শফিকুল ইসলাম মোল্লা আরো জানান,পিকআপ ভ্যান ভাড়া নিয়ে কথা কাটাকাটি ও মারামারিকে কেন্দ্র করে হত্যা পরিকল্পনার সূত্রপাত ঘটে আঃ রহমান নিহত হিরুকে হত্যার পরিকল্পনা করে। গত ইং ২২/০৯/২০১০ তারিখ আসামী আঃ রহমান পিকআপ চালিয়ে মিতরা বাস স্ট্যান্ড হতে ভাঙ্গালা বাজারে যাওয়ার পথে সিংগাইর থানাধীন আমতলী নামক বাস স্ট্যান্ড এলাকায় রাস্তায় হিরুকে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখতে পেয়ে হত্যার উদ্দেশ্যে তার উপর দিয়ে পিক আপ উঠিয়ে দিয়ে গুরুতর জখম করে। স্থানীয় লোকজন ভিকটিম হিরুকে উদ্ধার করে মানিকগঞ্জ সদর হাসপাতালে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত ডাক্তার ভিকটিম হিরুকে মৃত বলে ঘোষণা করে।

উক্ত ঘটনায় নিহত হিরু’র স্ত্রী মোসাঃ মেহেরজান বাদী হয়ে আসামী আঃ রহমানের বিরুদ্ধে সিংগাইর থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করে।  মামলার আসামী আঃ রহমানকে সংশ্লিষ্ট থানার পুলিশ গ্রেফতার করে জেল হাজতে প্রেরণ করে এবং ০৪ মাস কারাভোগ করে জামিনে মুক্তি পায়।

মামলার তদন্ত শেষে তদন্তকারী কর্মকর্তা আসামী আঃ রহমান এর বিরুদ্ধে বিজ্ঞ আদালতে চার্জশিট প্রদান করে। পরবর্তীতে চার্জশিটের ভিত্তিতে অতিরিক্ত দায়রা জজ আদালত, মানিকগঞ্জ এর বিজ্ঞ বিচারক উক্ত মামলার বিচারকার্য পরিচালনা করেন এবং পর্যাপ্ত স্বাক্ষ্য প্রমাণ ও উভয় পক্ষের যুক্তিতর্ক শেষে ভিকটিম হিরু হত্যাকান্ডে সরাসরি সম্পৃক্ত থাকার অপরাধে ০২/০৯/২০২১ তারিখে চার্জশীটে অভিযুক্ত আসামী আঃ রহমান’কে যাবজ্জীবন সাজা প্রদান করেন।

উক্ত ঘটনার পর হতে আসামী আঃ রহমান দীর্ঘ ১১ বছর পলাতক ছিলো।