ধামরাইয়ে এস.এস.সি পরীক্ষার কেন্দ্র সচিবকে অব্যাহতি-এক লাখ টাকা জরিমান ।

ঢাকার ধামরাইয়ে চলতি এস.এস.সি পরীক্ষায় বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগে গতকাল বুধবার দুপুরে যাদবপুর বি.এম. উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও কেন্দ্র সচিব মো.আলী হায়দারকে কেন্দ্র সচিবের দায়িত্ব পালন হতে অব্যাহতি প্রদানসহ এক লাখ টাকা জরিমানা করেছেন ভ্রাম্যমান আদালতের নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট।

জানা গেছে, উপজেলার যাদবপুর বি.এম.উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে এস.এস.সি পরীক্ষা চলাকালে ওই বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক অর্থ্যাৎ কেন্দ্র সচিব মো. আলী হায়দার নিজের ক্ষমতার দাপট দেখিয়ে কেন্দ্র পরিদর্শক হিসেবে দায়িত্ব প্রাপ্ত কর্মকর্তাদের সাথে অসৌজন্যমূলক আচরণ করেছেন। যদি ওই বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের নকল করতে বাধা দেওয়া হয় তবে সেই সকল শিক্ষককে পরবর্তীতে নিজ স্কুলের শিক্ষার্থীদের কক্ষে আর দায়িত্ব দেওয়া হয় না। শুধু তাই নয়, নকল সরবরাহে সহযোগীতা করা ছাড়াও নিজের ইচ্ছামত আমছিমুর সেসিপ মডেল স্কুল ও গোহাইলবাড়ী উচ্চ বিদ্যালয়ের নাম দিয়ে শফিকুল ইসলাম ও শরিফুল ইসলাম নামের দুই ব্যক্তিকে কর্তৃপক্ষের অনুমতি না নিয়ে তাদেরকে পরীক্ষার কের্ন্দের কক্ষ পরিদর্শনের দায়িত্ব পালনের জন্য ভূয়া কার্ড ইস্যু করেছেন। অথচ ওই বিদ্যালয় গুলিতে ওই ব্যক্তি বা শিক্ষক নামে কেউই নেই বলে প্রধান শিক্ষকরা জানিয়েছেন। ওই পরীক্ষা কেন্দ্রে দ্বায়িত্ব প্রাপ্ত কেন্দ্র পরিদর্শক উপজেলা জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অফিসের উপসহকারী প্রকৌশলী মোঃ শামীউর রহমান ও উপজেলা ডেভেলপমেন্ট ফ্যাসিলিটেট কর্মকর্তা মিজানুর রহমান এমন লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কাছে।

এই ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার আবুল কালাম অভিযোগের সত্যতা পেয়ে যাদবপুর বি.এম. উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও কেন্দ্র সচিব মো. আলী হায়দারকে কেন্দ্র সচিবের দায়িত্ব হতে অব্যাহতি প্রদানসহ এক লাখ টাকা জরিমানা করেন এবং অনাদায়ে ১৫দিনের কারাদন্ড প্রদান করেন।

পরে ওই পরীক্ষা কেন্দ্রে উপজেলার বেরশ শিবনাথ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রধান শিক্ষক মোঃ ইকবাল হোসেনকে কেন্দ্র সচিব হিসেবে দায়িত্ব দেন।
অভিযুক্ত ওই শিক্ষকের বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেয়ার জন্য সুপারিশ করেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার।