ধামরাইয়ে জন্মদিনের দাওয়াত দিয়ে নিয়ে ধর্ষণ, থানায় অভিযোগ ।

ঢাকার ধামরাইয়ে জন্মদিনের অনুষ্ঠানের দাওয়াত করে নিয়ে ঘরের ভিতর আটকে রেখে “দি এ্যাকমি ল্যাবরেটরিজ” কারখানার এক নারী শ্রমিককে ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে ঐ ওষুধ কারখানার তারই এক সহযোগীর বিরুদ্ধে ।

তবে এই ব্যাপারে কোন প্রকার বিচার করলে, চাকরী থেকে বহিস্কার করা হবে বলে হুমকি প্রদান করে ধর্ষক ।

পরে বুধবার দিনগত রাতে ধামরাই থানায় ধর্ষক ও তার সহযোগিদের বিরুদ্ধে একটি অভিযোগ দাখিল করেছে ঐ নারী শ্রমিক ।
এই ব্যাপারে ভুক্তভোগি নারী শ্রমিক বলেন, তিনি দীর্ঘদিন ধরে দি এ্যাকমি ল্যাবরেটরিজের কান্টিনের কাজে নিয়োজিত ছিল । তিনি কারখানার অস্থায়ী শ্রমিক হিসাবে কাজ করেন। এই সময় ধামরাই দি এ্যাকমি ল্যাবরেটরিজের পিয়ন ধামরাই পৌর-শহরের ছোট চন্দ্রাইল মহল্লার বাসিন্দা মোঃ জসিম উদ্দিনের ছেলের জন্মদিনের অনুষ্ঠানে ঐ নারী শ্রমিককে সোমবার সন্ধ্যায় দাওয়াত করে।

পরে নারী শ্রমিক সোমবার রাত ৮ ঘটিকার সময় জসিমের বাচ্চার জন্য খেলনা নিয়ে জন্মদিনের অনুষ্ঠানে যায়। যাওয়ার পরে জসিম তার ঘরে নিয়ে তাকে বসতে দেয়। এর পর জসিম কৌশলে বাহির থেকে ঘরের দরজা বন্ধ করে চলে আসে। পরে ঘরের ভিতরে থাকা জসিমের কলিক দি একমি কারখানার পিয়ন কুল্লা গ্রামের রওশনের ছেলে রাহিম মিয়া সুযোগ বুঝে ঐ নারী শ্রমিকের উপর ঝাপিয়ে পড়ে ধর্ষণ করে।

এই ব্যাপারে পিয়ন মোঃ জসিম উদ্দিন নিজেকে নির্দোষ দাবি করে বলেন,তার বাড়ীতে কোন জন্মদিনের অনুষ্ঠান ছিল না।
এই ব্যাপারে মোঃ রাহিম মিয়া অনিত অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন আমি এই আমি এই ধরনের কাজ করি নাই।আমাকে যড়যন্ত্র করে ফাঁসানো হয়েছে।

এই ব্যাপারে দি একমি ল্যাবরেটরিজের এ্যাডমিন ম্যানেজার মোঃ মাজহারুল ইসলাম বলেন, আমি এ ব্যাপারে কিছুই জানতাম না। আজ ধামরাই থানা থেকে পুলিশ অফিসার আসার পর জানতে পারলাম। তবে আমি পুলিশ অফিসারকে বলেছি এর সঠিক তদন্ত করে আইনি ব্যাবস্থা নিতে।

এই ব্যাপারে ধামরাই থানার পি এস আই মোঃ ইবনে ফরহাদ বলেন, ধর্ষণের ব্যাপারে একটি অভিযোগ পেয়েছি এবং তদন্ত চলছে এর পর আইনি ব্যাবস্থা নেওয়া হবে।