ধামরাই উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী মোয়াদ্দেছ হোসেন বিজয়ী ।

ঢাকার ধামরাই উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে স্থগিত হওয়া কেন্দ্র কান্দাপটল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের কেন্দ্রটিতে আনারস প্রতীক জয়লাভ করেছে। গতকাল বুধবার সকাল ৮ঘটিকা থেকে বিকাল ৪ ঘটিকা পর্যন্ত একযুগে ভোট গ্রহণ হয়। কান্দাপটল স্থগিত হওয়া কেন্দ্রে মোট ভোটার সংখ্যা ছিল ১৮৯১। এতে আনারস প্রতীক ৮০৯ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়। তার নিকটতম প্রার্থী নৌকা প্রতীকে ৫৩ ভোট, লাঙ্গল প্রতীক ০১ ভোট, মশাল প্রতীকে ০২ ভোট পেয়েছে। এতে বাংলাদেশ আওয়ামী-লীগের নৌকা প্রতীকের প্রার্থী মোঃ মিজানুর রহমান স্তগিত হওয়া কেন্দ্রসহ মোট ভোট পেয়েছে ৩৯০৫৪টি , স্বতন্ত্র প্রার্থী মোঃ মোয়াদ্দেছ হোসেন আনারস প্রতীক নিয়ে পেয়েছে ৪১৩৭৫ ভোট, লাঙ্গল প্রতীকে মোঃ দেলোয়ার হোসেন খান মিলন পেয়েছে ৮৩ ভোট এবং মশাল প্রতীকে আনোয়ার হোসেন মুন্নু পেয়েছে ১২৩ ভোট। এতে স্বতন্ত্র প্রার্থী মোয়াদ্দেছ হোসেন আনারস প্রতীক নিয়ে বেসরকারী ভাবে ২৩২১ ভোট বেশি পেয়ে বিজয়ী হয়েছে।

উল্যেখ্য, গত ৩১ মার্চ সকাল ৮ঘটিকার সময় থেকে ভোট গ্রহন শুরু হয়ে বিকাল ৪ ঘটিকার সময় পর্যন্ত এক যোগে ১৪৮টি কেন্দ্রে ভোট গ্রহণ হয়। তবে প্রথমে শান্তি পৃর্ণভাবে ভোট গ্রহণ চলাকালে হঠাৎ করে কান্দাপটল কেন্দ্রে প্রিজাইডিং অফিসারের সহয়তাই জালভোট দিতে গিয়ে কর্তব্যরত আইন শৃংখলা বাহিনীর হাতে ধরা পরে। পরে প্রিজাইডিং অফিসার মোঃ আবুল বাশারকে আটক করে ম্যাজিষ্ট্রেট।এতে স্বতন্ত্র প্রার্থী মোঃ মোয়াদ্দেস হোসেন অভিযোগ করলে কেন্দ্রটি স্থগিত করে দেয় সহকারী রির্টানিং অফিসার মোঃ আবুল কালাম।

ধামরাই উপজেলায় মোট ভোটার সংখ্যা ৩ লক্ষ ২০হাজার ৩৩২টি। এতে মোট কেন্দ্র ছিল ১৪৮টি, কান্দাপটল কেন্দ্রে জালভোট দেওয়ার কারণে কেন্দ্রটি স্থগিত করে সহকারী রির্টানিং অফিসার। ভোট গ্রহণ শেষে বাকি ১৪৭ টি কেন্দ্রের ফলা ফল ঘোষনা করেন সহকারী রির্টানিং অফিসার। ১৪৭টি কেন্দ্রের ফলা ফলে দেখা যায় বাংলাদেশ আওয়ামী-লীগের প্রার্থী নৌকা প্রতীকে মোঃ মিজানুর রহমান পেয়েছে ৩৯০০১ ভোট এবং স্বতন্ত্র প্রার্থী আনারস প্রতীকে মোঃ মোয়াদ্দেছ হোসেন পেয়েছে ৪০৫৬৬ভোট। এতে নৌকার প্রার্থী মিজানুর রহমানের চেয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী আনারস মার্কায় উপজেলা যুবলীগের সভাপতি মোঃ মোয়াদ্দেস হোসেন ১৫৬৫ ভোটে এগিয়ে ছিল।