বই বাধাই মালিকদের ধর্ম ঘটের কারনে বন্ধ হয়ে গেছে নতুন বইয়ের প্রকাশনা।

এম এ জব্বার: ১৯৭৯ সালে মেলার সঙ্গে যুক্ত হয় বাংলাদেশ পুস্তক বিক্রেতা ও প্রকাশক সমিতি।

এ সংস্থাটিও প্রতিষ্ঠা করেছিলেন চিত্তরঞ্জন সাহা। ১৯৮৪ সালে এসে গ্রন্থমেলার জন্য বিধিবদ্ধ নীতিমালা প্রণীত হয় এবং গ্রন্থমেলার নাম হয় ‘অমর একুশে গ্রন্থমেলা’। সেই থেকে এ গ্রন্থমেলা প্রতি বছর প্রায় একই আঙ্গিকে অনুষ্ঠিত হয়ে আসছে।

অমর একুশে গ্রন্থমেলা – পাঠককের পদ চারনায় মুখরিত বই মেলা প্রাঙ্গণ। বই বাধাইয়ের দর নিয়ে প্রকাশক সমিতির সাথে মত পার্থক্যকের ২ দিন ধরে ধর্মঘট পালন করছে বই বাধাই মালিক সমিতি।

ধর্মঘটের কারনে বন্ধ হয়ে আছে নতুন বইয়ের প্রকাশনা, বিপাকে পরছেন ও লেখকরা। তবে অনেক প্রকাশকদের মতে কাগজ ও অনান্য জরুরী কাচা মালের মূল্যে বৃদ্ধির কারনে বই বাধাইয়ের দাম বাড়াটা এখন সময়ের দাবি।

বই বাধাই মালিক সমিতির দাবি দ্রব্য মূল্যের দাম বৃদ্ধি পাওয়ায়, বাধাই শ্রমিকদের দিন দিন হাজিরা বাড়াতে হচ্ছে।

এ সময় সৃজনশীল ও ধর্মীও পুস্তক বাধাই সমিতির সভাপতি – কামরুজ্জামান খাঁন (কচি) জানান – তাদের ধর্মঘোট স্থগিত রাখা হয়েছে এবং প্রকাশকদের সাথে এ বিষয় নিয়ে আলোচনা হয়েছে, অচিরেই এর একটি সঠিক সমাধান আসবে।