ভারতে নেতার বিরুদ্ধে পতিতাপল্লী চালানোর অভিযোগ

ভারতীয় জনতা পার্টির (বিজেপি) মেঘালয় ইউনিটের সহসভাপতি বার্নাড এন মারাকের বিরুদ্ধে ফার্মহাউসে পতিতাপল্লী চালানোর অভিযোগ উঠেছে।
তুরা নামক এলাকার ফার্মহাউসে অশালীন কাজকর্মের অভিযোগে তাকে সম্প্রতি উত্তর প্রদেশ থেকে গ্রেফতার করা হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছে পুলিশ। খবর ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসের।

মেঘালয়ের আদালত থেকে অজামিনযোগ্য ওয়ারেন্ট জারি করার একদিনের মাথায় ৪৬ বছর বয়সী মারাককে গ্রেফতার করা হয়। মারাক গারো পাহাড়ের স্বায়ত্তশাসিত জেলা কাউন্সিলের একজন নির্বাচিত সদস্য। গত শুক্রবার (২২ জুলাই) তার বাসা থেকে ৫ অপ্রাপ্তবয়স্ক নারীকে উদ্ধার করার পর থেকে তিনি পালিয়ে ছিলেন। তিনি সশস্ত্র গোষ্ঠী আচিক জাতীয়- এর একজন সদস্য ছিলেন।

পুলিশ এবং স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, মারাক এক সময়ে জঙ্গি সংগঠনের সদস্য ছিলেন, পরে তিনি যোগ দেন রাজনীতিতে। ঘটনাচক্রে বিজেপির সহসভাপতি হন তিনি।

পুলিশ জানায়, মারাকের একটি ফার্মহাউস আছে। রিম্পু বাগান নামের ওই খামার বাড়িতেই চলত ওই যৌনপল্লী। গোপন সূত্রে খবর পাওয়ার পরে সেখানে অভিযান চালানো হয়। ওই তল্লাশি অভিযানে সেই খামার বাড়ি থেকে ৪০০ মদের বোতল পাওয়া যায়। সেই সঙ্গে উদ্ধার হয়েছে প্রায় ৫০০টি অব্যবহৃত কনডম। যে ৭৩ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে তারা সেখানে খদ্দের হিসেবে গিয়েছে বলেও প্রমাণ পাওয়া গেছে। এই ফার্মহাউসে ৩০টি ছোট ছোট ঘর আছে ।
এছাড়া সেখান থেকে ৬ জন নাবালিকাকে উদ্ধার করা হয়েছে বলেও জানায় পুলিশ। তাদের মধ্যে চারজন বালক এবং ২জন মেয়েকে একটি ঘরে আটকে রাখা হয়েছিল। একটি অস্বাস্থ্যকর ঘরে তাদেরকে তালাবন্ধ করে রাখা হয়। রিম্পু বাগানকে মারাক এবং তার সহযোগীরা অশ্লীল নানান কাজের জন্য ব্যবহার করতেন।

ফেব্রুয়ারিতে দায়ের করা এক অভিযোগের ভিত্তিতে মারাকের মালিকানায় থাকা বাসাবাড়িতে অভিযান চালায় পুলিশ। ওই অভিযোগ অনুযায়ী একজন অপ্রাপ্তবয়স্ক নারীকে যৌননিগ্রহ করেছেন তিনি।