মাগুরার মহম্মদপুরের মাদ্রাসা সুপারের বিরুদ্ধে নিয়োগ বানিজ্যসহ নানা অনিয়মের অভিযোগ

আশরাফ হোসেন পল্টু,মাগুরা প্রতিনিধি : মাগুরার মহম্মদপুর উপজেলার চাকুলিয়া এস.এম দাখিল মাদ্রাসার সুপার আব্দুস সাকুর মোল্যার বিরুদ্ধে নিয়োগ বানিজ্যসহ নানা অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে।

সোমবার দুপুরের পর চাকুলিয়া এস.এম দাখিল মাদ্রাসার সামনে এলাকাবাসী মাদ্রাসা সুপার আব্দুস সাকুর মোল্যার বিভিন্ন দূণীতি ও অবৈধ নিয়োগ বাণিজ্য বন্ধের দাবিতে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেন ।

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, প্রশ্নপত্র ফাঁস করে নিরাপত্তা প্রহরী পদে মানসিক ভারসাম্যহীন আব্দুল্লাহ আল মামুন নামের একটি ছেলেকে নিয়োগের ব্যবস্থা করেন। এমন একটি ছেলেকে নিয়োগ দিলে প্রতিষ্ঠানের চরম ক্ষতি হবে। যে ছেলে তার নিজেকেই রক্ষা করতে পারেনা সে প্রতিষ্ঠানকে রক্ষা করবে কি ভাবে ? তাই এই নিয়োগ পরীক্ষা বাতিল করে দূর্ণীতিবাজ মাদ্রসার সুপারের বিরুদ্ধে তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ডের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন এলাকাবাসী।

স্থানীয় আওয়ামীলীগ নেতা আবির হোসেনের সভাপতিত্বে এই মানববন্ধনে এলাকার বিভিন্ন শ্রেণি পেশার মানুষের অংশ গ্রহনে বক্তব্য রাখেন আব্দুল ওয়াদুদ, মো: টোকনুজ্জামন, আনোয়ার জাহিদ ও মো: হারুন মুন্সি প্রমূখ।

তবে এ বিষয়ে আব্দুল্লাহ আল মামুনের পিতা রুহল আমিন জানান, সাত থেকে আট বছর আগে মামুন শারিরীকভাবে অসুস্থ হয়ে পড়ে। তাকে মানসিক ডাক্তার দেখানোর পর এক থেকে দেড়মাসের মধ্যেই মামুন সুস্থ হয়ে ওঠে। এখন সে সম্পূর্ণ সুস্থ অবস্থায় সংসারের যাবতীয় কাজকর্ম করছে।

চাকুলিয়া এস.এম দাখিল মাদ্রাসার সুপার আব্দুস সাকুর মোল্যা অভিযোগের বিষয়টি অস্বীকার করে বলেন, আমি সম্পন্ন সরকারি বিধি মোতাবেক সঠিক যাচাই-বাছায়ের মাধ্যমে প্রার্থী নির্বাচন করে নিরপেক্ষ পরীক্ষার নিয়ে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। আমি কারো কাছ থেকে একটি টাকাও নেইনি। তবে যে সকল প্রার্থীর অভিভাবকরা তাদের প্রার্থীকে নেওয়ার জন্য আমাকে টাকার প্রস্তাব দিয়েছিল তাদের অযোগ্য সেই প্রার্থীকে নেয়নি বলেই তারা আমার বিরুদ্ধে এমন মিথ্যা অপপ্রচার করছে।

এবিষয়ে মহম্মদপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো: মিজানুর রহমান বলেন, চাকুলিয়া এস.এম দাখিল মাদ্রাসার সুপার আব্দুস সাকুর মোল্যার বিরুদ্ধে দূর্নীতি ও অনিয়মের কোন অভিযোগ এখনও হাতে পাইনি, তবে অভিযোগ পেলে তদন্তপূর্বক অবশ্যই আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।