মাগুরার শ্রীপুরে পুলিশের ধাওয়া খেয়ে আওয়ামীলীগ নেতার মৃত্যুতে ২০ জনের বিরুদ্ধে মামলা ভিডিও ।

আশরাফ হোসেন পল্টু, মাগুরা প্রতিনিধি ঃ মাগুরার শ্রীপুরে পুলিশের ধাওয়া খেয়ে পানিতে ডুবে নিহত আওয়ামীলীগ নেতার মৃত্যুতে ডিবি পুলিশের এস আই ওলিয়ার রহমানসহ ২০ জনের বিরুদ্ধে আদালতে মামলা ।

মাগুরার শ্রীপুর উপজেলার শ্রীকোল ২নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সভাপতি আমিরুল ইসলাম (৪৫) পুলিশের ধাওয়া খেয়ে পানিতে ডুবে নিহতের ঘটনায় ডিবি পুলিশের উপপরিদর্শক(এস,আই) ওলিয়ার রহমানসহ ২০ জনের বিরুদ্ধে আদালতে হত্যা মামলা করা হয়েছে । রবিবার দুপুরে মাগুরার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে নিহত আমিরুলের বড় ভাই বাহারুল ইসলাম বাদী হয়ে এই মামলা দায়ের করেন ।

মামলার বাদী বাহারুল ইসলাম এজাহারের সূত্রে জানান,ডিবি পুলিশের এস,আই ওলিয়ার রহমান,কনস্টেবল বুলবুল আলমসহ সাতজনের ডিবি পুলিশের একটি টিম গত ৬ আগস্ট বিকেলে শ্রীকোল গ্রামের প্রতিপক্ষ বাহারুল বিশ্বাস এর বাড়িতে যায় এবং তার সাথে পুলিশ মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে তাঁর ছোট ভাই আওয়ামীলীগ নেতা আমিরুলকে হত্যার পরিকল্পনা করে । এরপরই ডিবি পুলিশের ইন্সপেক্টর নাসিরের নেতৃত্বে একদল ডিবি পুলিশ হাটশ্রীকোল বাজারে প্রবেশ করে । তখন আওয়ামীলীগ নেতা আমিরুল ইসলাম ঔই বাজারের মদনের চায়ের দোকানে বসা ছিল ।

পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে আমিরুল ইসলাম দৌড়ে গিয়ে পার্শ্ববর্তী কুমার নদের পানিতে ঝাপ দেয় । কিন্তু পুলিশ তার পিছু ছাড়েনি বরং পুলিশও দৌড়ে পানিতে নেমে পড়ে ।

একপর্যায়ে আমিরুল বাঁচার জন্য নদের গভীর পানিতে চলে যায় এবং হাত উঁচিয়ে বাঁচার আকুতি করে কিন্তু পুলিশ নৌকা নিয়ে তার কাছে পৌছে তাকে উদ্ধার না করে বরং নৌকার লগি দিয়ে মাথায় আঘাত করে পানিতে ডুবিয়ে দিয়ে কূলে ফিরে আসে। পরে স্থানীয় লোকজনসহ শ্রীপুর ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা ঔই সময় তাকে নদীতে তল্লাশী করে খুজে না পেয়ে খুলনার ডুবুরি দলকে সংবাদ দেওয়া হয় ।

খুলনা থেকে আসা পরের দিন সকালে ডুবুরি দল নদীতে আধা ঘন্টা তল্লাশী চালিয়ে আমিরুলের মরদেহ উদ্ধার করে । লাশ উদ্ধারের পর মাগুরার পুলিশ সুপার খান মুহাম্মদ রেজোয়ান এর সহযোগিতায় লাশের ময়না তদন্তের জন্য মাগুরা মর্গে প্রেরণ করা হয়। এঘটনায় নিহত আমিরুলের বড় ভাই বাহারুল ইসলাম ডিবি পুলিশের এস,আই ওলিয়ার রহমান,কনস্টেবল বুলবুলসহ অজ্ঞাত সাত পুলিশ সদস্য এবং গ্রাম্য প্রতিপক্ষ বাহারুল বিশ্বাসসহ ২০ জনকে আসামী করে মাগুরার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মামলা দায়ের করেছেন ।

বাদী পক্ষের আইনজীবী এ্যাডভোকেট শফিকুল ইসলাম জানান, বিজ্ঞ ম্যাজিস্ট্রেট বুলবুল ইসলাম বাদীর বক্তব্য গ্রহন করে তিনি গত রবিবার এ আদেশ দেন যে ,বিষয়টি তদন্তপূর্বক আগামী ১৮ সেপ্টেম্বরের মধ্যে এবিষয়ে থানায় অন্য কোনো মামলা হয়েছে কিনা জানাতে শ্রীপুর থানার ওসিকে নির্দেশ দিয়েছেন বিজ্ঞ ম্যাজিস্ট্রেট । এবিষয়ে মামলার এজাহারভূক্ত প্রধান আসামী এস,আই ওলিয়ার নির্দোষ দাবি করে বলেন,ঘটনার দিন বিকেলে ডিবি ইন্সপেক্টর নাসিরের নেতৃত্বে একদল ডিবি পুলিশ শ্রীকোল বাজারের অন্য দু’মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করার উদ্দেশ্যে যায়। কিন্তু বাজারে ডিবি পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে শ্রীপুর থানার ৩টি এজাহারভূক্ত মামলার আসামী আমিরুল দৌড়ে পালানোর চেষ্টা করে এবং পাশ্ববর্তী কুমার নদের পানিতে লাফিয়ে পড়েই নদীর গভীর পানিতে চলে যায়।

সাধারণত তার দৌড়ে পালানো দেখে পুলিশের সন্দেহ হলে পুলিশ তাকে ধরার চেষ্টা করে। প্রথম পর্যায়ে পুলিশ পানিতে নেমে তাকে ধরতে না পেরে পরে নৌকা নিয়ে তাকে ধরার চেষ্টা করা হয় এবং নৌকা নিয়ে তার কাছাকাছি পৌছাতে না পৌছতেই সে পানিতে ডুবে যায় । তার শরীরের কোথাও কোন আঘাত পুলিশ করেনি বলে দাবি করেন । তবে ময়না তদন্তের চুড়ান্ত প্রতিবেদন পেলে সব জানা যাবে ।