রাজশাহীতে করোনাকালেও নতুন বছরে হাতে নতুন বই পেল শিক্ষার্থীরা।

সৌমেন মন্ডল, রাজশাহী ব্যুরোঃ করোনা কেড়েনিয়েছে স্কুলের হইউল্লাস।কেরে নিয়েছে বন্ধুদের সাথে বসে একসাথে আড্ডা দেওয়া।কিন্তু নতুন বছরে বই উল্লাস কারতে পারেনি।

রাজশাহীতে নতুন বছরে প্রতিটি স্কুলে শিক্ষার্থীদের হাতে বিনামূল্যে তুলে দেওয়া হয়েছে নতুন বই। এবছর করোনা ভাইরাসের কারণে অন্যান্য বছরের মতো বই উৎসব ছাড়াই স্বাস্থ্যবিধি মেনে শ্রেণিকক্ষেই এ বই বিতরণ কার্যক্রম অনুষ্ঠিত হচ্ছে। এরকম মহামারীকালে হাতে নতুন বই পেয়ে উচ্ছ্বসিত রাজশাহীর সকল স্কুলের শিক্ষার্থীরা।

নতুন বই পেয়ে ও দীর্ঘ নয় মাস পর সহপাঠীদের সাথে মেশার সুযোগ পেয়ে অভিভূত তারা। আজ শুক্রবার ( ১ জানুয়ারি) বন্ধের দিন রাজশাহী সরকারি পিএন বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে গিয়ে দেখা যায় শিক্ষার্থীদের মাঝে বই বিতরণ করেন স্কুলের শিক্ষকরা। নতুন বই পেয়ে সরকারি পিএন বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের উচ্ছ্বসিত শিক্ষার্থী সানজিদা বলেন,‘ ‘করোনার এই সময়ে নতুন বই পাবো কখনো ভাবতে পারিনি! অনেক দিন পরে সকল বন্ধুদের সাথে দেখা হয়েছে  সাথে নতুন বই অনেক ভালো লাগছে’।

শিক্ষার্থী শামিমা আখতার জানান, নয় মাস থেকে অনেক সহপাঠীদের সাথে দেখা হয়নি। আজ সকলের সাথে দেখা হয়েছে। নতুন বছরে নতুই বইয়ের গন্ধ পেলাম। সত্যি অনেক বেশি ভালো লাগছে।

শিক্ষার্থী নিলুফার ইয়াসমিন বলেন,‘ করোনা মহামারিতে আমরা দীর্ঘ সময়ে বাসাতে বন্দি ছিলাম। প্রিয় শিক্ষক ও স্কুলের বন্ধুদের সবাইকে খুব মিস করছিলাম। আজ নতুন বছরে সবার সাথে দেখা হয়েছে। সাথে নতুন বই অনুভুতিটা বলে বোঝাতে পারবো না।

সরকারি পিএন বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা তৌহিদ আরা বলেন,‘ ২০২১ সালে বাচ্চাদের হাতে আমরা যে নতুন বই দিতে  পারবো’ এটা যেমন বাচ্চারা ভাবতে পারেনি তেমনি আমরাও ভাবতেও পারিনি। এ জন্য প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি। বাচ্চারাও অনেক খুশি হয়েছে। আজ স্বাস্থ্যবিধি মেনে নতুন ভাবে বই বিতরণের কার্যক্রম করা হয়েছে।

এবছর রাজশাহী জেলায় ১ হাজার ৫৭টি প্রাথমিক স্কুলের প্রথম থেকে পঞ্চম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের জন্য বরাদ্দ হয়েছে মোট ১৩ লাখ ৮৯ হাজার ৫৭৬ বই। যার মধ্যে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসে এসে পৌঁছেছে ১৩ লাখ ৪ হাজার বই। মাধ্যমিকের সকল স্তরের শিক্ষার্থীদের জন্য বরাদ্দ হয়েছে ৪৪ লাখ ১৯ হাজার ২৯৮ বই। যার মধ্যে জেলা শিক্ষা অফিসে এসে পৌঁছেছে মাত্র ১১ লাখ ২১ হাজার ২৮৬ বই।

করোনা ভাইরাসের কারণে ছাপা জটিলতায় মাধ্যমিক পর্যায়ের বই পেতে দেরি হলেও আগামি ১২ দিনের মধ্যে সব স্কুলে বই পৌঁছে যাবে বলে জানিয়েছেন শিক্ষা কর্মকর্তারা।