রাসিক মেয়র বলেন, সবাই কে নিয়ে কাজ করছে প্রধানমন্ত্রী

সৌমেন মন্ডল, রাজশাহী ব্যুরোঃ শারদীয় দুর্গাপূজা ২০২০ উদযাপন উপলক্ষ্যে রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের আয়োজনে হিন্দু স¤প্রদায়ের নেতৃবৃন্দ ও মহানগরীর পূজা উদযাপন কমিটি, মন্দির, ক্লাব-এর সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকগণের সাথে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

শনিবার দুপুরে নগরভবনের সিটি হল সভাকক্ষে আয়োজিত মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের মেয়র এ.এইচ.এম খায়রুজ্জামান লিটন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে মেয়র বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আজন্ম লালিত স্বপ্ন ছিল অসা¤প্রদায়িক বাংলাদেশ। বঙ্গবন্ধু সেই চেতনা আমাদের শিখিয়ে গেছেন। ১৯৭৫ সালের পর সেটি নষ্ট হয়েছিল। বঙ্গবন্ধুকন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অসা¤প্রদায়িক বাংলাদেশ গড়েছেন। ধর্ম যার যার, রাষ্ট্র সবার। সবাইকে নিয়ে বাংলাদেশ গড়ছেন প্রধানমন্ত্রী। এদেশের উন্নয়নে সবার অবদান আছে। বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে মুসলমান, হিন্দুসহ সকলে মিলে দেশ স্বাধীন করেছিল। বঙ্গবন্ধু কন্যার নেতৃত্বে আমরা সবাই মিলে বাংলাদেশ গড়ছি। সেজন্য বাংলাদেশ আজ বিশে^র বিম্ময়।

মেয়র লিটন বলেন, হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় উৎসব দুর্গাপূজা। রাজশাহীর তাহিরপুরে দুর্গাপূজার উৎসব শুরু হয়। দুর্গাপূজা সুষ্ঠু ও সুন্দরভাবে সম্পন্ন করতে প্রতি বছরের ন্যায় এবছরও রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের ব্যবস্থাপনা ও সহযোগিতা অব্যাহত রাখবে। নিরাপত্তাসহ সকল বিষয়ে প্রতিটি ওয়ার্ডের সংশ্লিষ্ট কাউন্সিলরবৃন্দ সহযোগিতা করবেন, তারা সতর্ক ও সজাগ থাকবেন।

মেয়র আরো বলেন, আমি বিগত সময়ও মেয়র থাকাকালে রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের পক্ষ থেকে ও ব্যক্তিগতভাবে প্রতিটি পূজা মÐপে আর্থিক সহযোগিতা প্রদান করেছি। এ বছরও প্রতিটি পূজা মÐপকে ১০ হাজার টাকা প্রদান করা হবে।

তিনি বলেন, করোনা পরিস্থিতিতে বিশ^ যখন বিপর্যস্ত তখন বাংলাদেশ এ পরিস্থিতিতেও অর্থনৈতিকভাবে এগিয়ে যাচ্ছি। প্রবৃদ্ধি অর্জন করছি। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে সফলভাবে করোনা মোকাবেলা ও উন্নয়নে বিশে^র বিস্ময় হয়েছে বাংলাদেশ।

মেয়র বলেন, এবার করোনা পরিস্থিতির মধ্যে দুর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। এবার সরকারি নির্দেশিত বিধিমালা অনুসারণ করে স্বাস্থ্যবিধি মেনে উৎসব পালন করতে হবে। স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা ও মাস্ক ব্যবহার করতে হবে।

সভায় পূজা মÐপে সাবান দিয়ে হাত ধোয়ার ব্যবস্থা, থার্মাল স্ক্যানার, জীবানুনাশক স্প্রে, পর্যপ্ত আলোকায়ন, নিরাপত্তায় সিসি ক্যামেরা স্থাপনসহ বিভিন্ন বিষয়ে আলোচনা ও সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়। এবার রাজশাহী মহানগরীতে ৬৯টি পূজা মÐপে দুর্গাপূজা উদযাপন করা হবে।

রাসিকের গোরস্থান, ঈদগাহ, শ্মশান ঘাট ব্যবস্থাপনা ও ধর্ম বিষয়ক স্থায়ী কমিটির সভাপতি ১৬নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর বেলাল আহম্মেদ সভাপতিত্বে সভায় বক্তব্য দেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মুহাম্মদ শরিফুল হক, আরএমপি‘র ডিসি বোয়ালিয়া মোঃ সাজিদ হোসেন, হিন্দু ধর্মীয় কল্যাণ ট্রাস্টের ট্রাস্টি তপন কুমার সেন, বাংলাদেশ হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদ রাজশাহী মহানগর সভাপতি অধ্যাপক ড. সুজিত সরকার, সাধারণ সম্পাদক শ্যামল কুমার ঘোষ, বাংলাদেশ পুজা উদযাপন পরিষদ রাজশাহী মহানগর সভাপতি অলোক কুমার দাস, সাধারণ সম্পাদক শরৎ চন্দ্র সরকার।

সভায় উন্মুক্ত আলোচনায় অংশ নেন হিন্দু স¤প্রদায়ের নেতৃবৃন্দ ও পুলিশের কর্মকর্তাবৃন্দ। সভায় রাসিকের কাউন্সিলর, কর্মকর্তাবৃন্দ, হিন্দু স¤প্রদায়ের নেতৃবৃন্দ ও রাজশাহী মহানগরীর পূজা উদযাপন কমিটি, মন্দির ও ক্লাবের সদস্যবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।