সাভারের বনগাঁও ইউপি চেয়ারম্যানের বিচারের দাবীতে সংবাদ সম্মেলন

গণমাধ্যমে স্থানীয় চেয়ারম্যানের দুর্নীতি ও অনিয়মের বিরুদ্ধে সাক্ষাৎকার দেওয়ায় ইউনিয়নের এক বাসিন্দাকে ডেকে নিয়ে ব্যাপক মারধরের অভিযোগ উঠেছে সাভার উপজেলার বনগাঁও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলামের বিরুদ্ধে।

বুধবার দুপুরে এর প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন করেছেন ভুক্তভোগী আনোয়ার হোসেন হওলাদারের পরিবার। এরআগে মঙ্গলবার সকালে বনগাঁও ইউনিয়ন পরিষদে ডেকে নিয়ে ওই ব্যক্তিকে মারধর করেন চেয়ারম্যান ও তার লোকজন। এ ঘটনায় সাভার মডেল থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন ভুক্তভোগী।

সংবাদ সম্মেলনে ভুক্তভোগী অনোয়ার হোসেনের ভাই মেহের হওলাদার বলেন, গত কয়েকদিন আগে বনগাঁও ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলামের বিভিন্ন অনিয়ম নিয়ে একটি বেসরকারী টেলিভিশনে সাক্ষাৎকার দেন তার ভাই আনোয়ার।

এতে ক্ষিপ্ত হয়ে ৬ এপ্রিল সকাল আনুমানিক ১০টার দিকে তার ভাইকে ইউনিয়ন পরিষদে ডেকে নেন চেয়ারম্যান।

এসময় ইউনিয়ন পরিষদের পূর্ব পাশে একটি বটগাছের নিচে চেয়ারম্যান সাইফুল, তার সহযোগী মনির হোসেন, আজিজুল ইসলাম, ফরিদ, রাসেল, শরীফ ও অজ্ঞাতনামা আরও ৪/৫জন তাকে মারধর করে। কিছু বুঝে উঠার আগেই বিভিন্ন দেশীয় অস্ত্র, হাতুরী, হকস্টিক ও রড দিয়ে তাকে মারাত্মকভাবে আহত করে।

সন্ত্রাসীরা এসময় তাকে এলোপাথারি কিল, ঘুষি, লাথি মেরে পায়ে, মাথার বাম পাশে, পিঠে ও কোমরে লীলাফুলা জখম করে। পরে তাকে আটকে রেখে গণমাধ্যমকে দেওয়া তথ্য মিথ্যা বলে জোরপূর্বক তার কাছ থেকে স্বীকারোক্তি নিয়ে ভিডিও ধারণ করেন চেয়ারম্যান ও তার ক্যাডার বাহিনী।

ভুক্তভোগীর ছেলে রুবেল হাওলাদার বলেন, চেয়ারম্যান ও তার পালিত সন্ত্রাসীদের মারধরে গুরুতর অবস্থায় তার বাবা এখন সাভার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি আসেন। এ ঘটনায় জড়িতদের বিচার দাবি করেন তিনি।

সংবাদ সম্মেলনে চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলামের বিরুদ্ধে দুর্নীতি ও কুকর্মের বিভিন্ন তথ্য তুলে করেন ওই ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডের মেম্বার মান্নান হাওলাদার।