সাভারের হেমায়েপুরে জয়নাবাড়ি এলাকায়, বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ধর্ষণের মামলায় গ্রেপ্তার ১

জাহিন সিংহ, সাভার থেকে: সাভারে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে এক নারীকে (২৩) দীর্ঘদিন যাবত ধর্ষণের অভিযোগ মামলা দায়ের করেন ভুক্তভোগী নারী। শুক্রবার দুপুরে সাভার মডেল থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে মামলাটি (৭৯/২৪-০৫-১৯) দায়ের করা হয়। এঘটনায় অভিযুক্ত আসামী মো.হাফিজুর রহমানকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

মামলার এজাহারে বলা হয়, সাভারের হেমায়েপুরে জয়নাবাড়ি এলাকার বাসিন্দা মামলার বাদী ওই নারী এবং পাশ্ববর্তী এলাকার অস্থায়ী বাসিন্দা বিবাদী মো.হাফিজুর রহমানের সাথে একই পোশাক করাখানায় চাকরির সুবাদে দুই বছরে আগে পরিচয় হয়। পরিচয় সূত্রে নিয়মিত কথোপকথনের এক পর্যায়ে তাদের প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠলে ওই কিশোরীকে বিয়ের প্রলোভন দেখায় সে।

গত এক বছর আগে অফিস ছুটির পর জরুরি প্রয়োজনের কথা বলার ছলে ওই কিশোরীর বাসায় গিয়ে তাকে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে হাফিজুর। তার পর থেকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে বিভিন্ন সময় ওই নারীর বাসায় এসে শারিরিক সম্পর্ক স্থাপন করে আসছে এবং প্রতিমাসে বেতন পাওয়ায় পর ওই কিশোরীর কাছ থেকে নিয়মিত টাকা পয়সাও নিত সে।

এছাড়া বিয়ের কথা বলে দেড় লক্ষ টাকা নিলেও বিভিন্ন তালবাহানা করতে থাকে। অবশেষে গত ০১/০৩/১৯ইং তারিখে ধর্ষণ করার পর বিয়ের কথা বললে তাকে অশ্লীল ভাষায় গালিগালাজ করে এবং বিয়ে করবে না বলে জানিয়ে দেয় হাফিজুর।

এব্যপারে মামলা বাদী ওই ভুক্তভোগী নারী বলেন, দীর্ঘদিন ধরে বিয়ের কথা বলে তাকে ধর্ষণ করে আসলেও তাকে বিয়ে করতে অস্বীকৃতি জানায় হাফিজুর। এছাড়া সে বিভিন্ন কথা বলে তার কাছ থেকে দেড় লক্ষ টাকাও নিয়েছে বলেও অভিযোগ করে ভুক্তভোগী।

সাভার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মলয় কুমার সাহা জানান, ভুক্তভোগী নারী থানায় মামলা দায়ের দয়েরের পর স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজের ওয়ানস্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে পাঠানো হয়েছে। আসামী হাফিজুরকে গ্রেপ্তার করে আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে বলেও জানান তিনি।

গ্রেপ্তারকৃত হাফিজুর নওগা জেলার মহাদেবপুর থানার হাসানপুর গ্রামের আব্দুর রহিমের ছেলে।