চলন্ত ট্রেনের ধাক্কায় এক কলেজ ছাত্রীর মৃত্যু হয়েছে

নরসিংদীর ঘোড়াশালে চলন্ত ট্রেনের ধাক্কায় জয়া দাস (১৭) নামে এক কলেজ ছাত্রীর মৃত্যু হয়েছে।

রবিবার (৬ ফেব্রুয়ারি) সকালে ঘোড়াশাল রেলস্টেশনে এই দুর্ঘটনা ঘটে। মৃত জয়া দাস পলাশ উপজেলার জিনারদী ইউনিয়নের ভালুকাপাড়া গ্রামের তপন দাসের মেয়ে। সে কালিগঞ্জ সেন্ট মেরি গার্লস কলেজের দ্বাদশ শ্রেণির শিক্ষার্থী।

রেলওয়ে পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, সকালে ওই শিক্ষার্থী কানে হেডফোন লাগিয়ে ঘোড়াশাল রেলস্টেশনের রেললাইন দিয়ে হাঁটছিল। এসময় ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা কিশোরগঞ্জ এক্সপ্রেস নামক একটি দ্রুতগামী ট্রেন ওই শিক্ষার্থীকে ধাক্কা দেয়। এতে মাথায় আঘাত লেগে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়। খবর পেয়ে নরসিংদী রেলওয়ে পুলিশ নিহতের লাশ উদ্ধার করে মর্গে প্রেরণ করে।

ঘোড়াশাল পুলিশ ফাঁড়ি ইনচার্জ জহিরুল আলম জানান, দুর্ঘটনার খবর পেয়ে ফাঁড়ি পুলিশ ও নরসিংদী রেলওয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে মরদেহ উদ্ধার করে। প্রাথমিকভাবে জানা যায় ওই শিক্ষার্থী কানে হেডফোন লাগিয়ে অসতর্কভাবে রেললাইন দিয়ে হাঁটায় এই দুর্ঘটনা ঘটে।

নরসিংদীর ঘোড়াশালে চলন্ত ট্রেনের ধাক্কায় জয়া দাস (১৭) নামে এক কলেজ ছাত্রীর মৃত্যু হয়েছে।

রবিবার (৬ ফেব্রুয়ারি) সকালে ঘোড়াশাল রেলস্টেশনে এই দুর্ঘটনা ঘটে। মৃত জয়া দাস পলাশ উপজেলার জিনারদী ইউনিয়নের ভালুকাপাড়া গ্রামের তপন দাসের মেয়ে। সে কালিগঞ্জ সেন্ট মেরি গার্লস কলেজের দ্বাদশ শ্রেণির শিক্ষার্থী।

রেলওয়ে পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, সকালে ওই শিক্ষার্থী কানে হেডফোন লাগিয়ে ঘোড়াশাল রেলস্টেশনের রেললাইন দিয়ে হাঁটছিল। এসময় ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা কিশোরগঞ্জ এক্সপ্রেস নামক একটি দ্রুতগামী ট্রেন ওই শিক্ষার্থীকে ধাক্কা দেয়। এতে মাথায় আঘাত লেগে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়। খবর পেয়ে নরসিংদী রেলওয়ে পুলিশ নিহতের লাশ উদ্ধার করে মর্গে প্রেরণ করে।

ঘোড়াশাল পুলিশ ফাঁড়ি ইনচার্জ জহিরুল আলম জানান, দুর্ঘটনার খবর পেয়ে ফাঁড়ি পুলিশ ও নরসিংদী রেলওয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে মরদেহ উদ্ধার করে। প্রাথমিকভাবে জানা যায় ওই শিক্ষার্থী কানে হেডফোন লাগিয়ে অসতর্কভাবে রেললাইন দিয়ে হাঁটায় এই দুর্ঘটনা ঘটে।