ধামরাইয়ে মেলায় থেকে বাড়ী ফেরার পথে গণধর্ষণের শিকার এক তরুণী।

ঢাকার ধামরাই উপজেলা সোমবাগ ইউনিয়নের শৈলান গ্রামের মেলায় বাড়ী ফেরার পথে চার বখাটে মিলে জোর করে রাস্তার পথি মধ্যে একটি পরিত্যাক্ত বাড়ীতে নিয়ে তরুণীকে চারজনে মিলে একাদিক বার ধর্ষণ করার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

এই ঘটনায় বৃহস্পতিবার সকাল ১২ ঘটিকার সময় তরুণী ধামরাই থানায় এসে একটি অভিযোগ দায়ের করেন।
গত শনিবার (০২ মার্চ) সন্ধ্যার সময় ধামরাই উপজেলার সোমবাগ ইউনিয়নে মধ্যে শৈলান গ্রামের মেলায় থেকে বাড়ী ফেরার পথে একটি পরিত্যাক্ত বাড়ীতে এই ধর্ষণের ঘটনাটি ঘটে।

ধর্ষণকারিরা হলেন, ধামরাই উপজেলার শরীফবাগ গ্রামের মৃত আব্দুল হালিমের ছেলে মোঃ রাসেল হোসেন(২৫), ধামরাই উপজেলার দেপাশাই গ্রামের মোঃ বাবু (২০) ।

এই ব্যাপারে ধর্ষিতা বলেন, আমি ও আমার বন্ধুরা মিলে গত শনিবার বিকালে শৈলান গ্রামের স্কুলের মাঠে মেলায় বেড়াতে যায়। মেলায় বেড়ানো শেষে বাড়ী ফেরার পথে উৎপেতে থাকা চারটি ছেলে আমাকে জোর করে ধরে একটি পরিত্যাক্ত বাড়ীতে নিয়ে ঐ চার বখাটে আমাকে ধর্ষণ করে। পরে আমি চিৎকার করলে আশে পাশের লোকজন ছুটে আসলে ধর্ষকরা আমাকে ফেলে পালিয়ে যায়।

পরে এলাকার লোকজন আমাকে নিয়ে আমার বাসায় পৌছিয়ে দেয়। আমি মারাত্নক ভাবে অসুস্থ্য থাকায় থানায় গিয়ে অভিযোগ দিতে দেরি হয়। আমি এর সঠিক বিচার চাই আপনাদের কাছে।

এই ব্যাপারে ধামরাই থানার অফিসার ইনর্চাজ (ওসি) দীপক চন্দ্র সাহা বলেন, ২মার্চ বিকালে শৈলান গ্রামে স্কুলের মাঠে দুই বন্ধুকে নিয়ে মেলায় বেড়াতে যায়। মেলায় থেকে ফেরার পথে উৎপেতে থাকা চার বখাটে রাস্তা থেকে জোর করে তোলে নিয়ে ধর্ষণ করে। এই ঘটনায় দুইজনের নাম উল্লেখ্য করে দুইজনের নাম অজ্ঞাত দিয়ে ধর্ষিতা থানায় এসে একটি অভিযোগ দায়ের করে।

এই বিষয়ে একটি ধর্ষণ মামলা দায়ের করা হবে। আসামীদের গ্রেফতারের চেষ্টা অব্যহত আছে। এই ধরণের ঘটনায় আসামীদের শাস্তি পেতেই হবে।