মোটর মালিক-শ্রমিক দ্বন্দ্বে দ্বিতীয় দিনেও নওগাঁ জেলার সকল রুটে বাস চলাচল বন্ধ

মোটর মালিক-শ্রমিক দ্বন্দ্বে দ্বিতীয় দিনেও নওগাঁ জেলার সকল রুটে বাস চলাচল বন্ধ আছে। ফলে ভোগান্তিতে পড়েছেন সাধারণ যাত্রীরা। বিকল্প হিসেবে জরুরি প্রয়োজনে যাত্রীরা অটোরিকশা ও ব্যাটারিচালিত গাড়িতে বাড়তি ভাড়া দিয়ে যেতে বাধ্য হচ্ছেন।

গতকাল শুক্রবার সকাল থেকে শহরের বালুডাঙ্গা বাসস্ট্যান্ড থেকে নওগাঁ জেলা সড়ক পরিবহন মালিক গ্রুপের নির্দেশে বাস চলাচল বন্ধ আছে।

নওগাঁ জেলা সড়ক পরিবহন মালিক গ্রুপের অভিযোগ, নওগাঁ জেলা মোটরশ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি ওমর ফারুক কোনো নিয়মনীতি না মেনে গত তিন মাস যাবৎ ঢাকা থেকে নওগাঁ রুটে ‘ফারুক এন্টারপ্রাইজ’ নামে বাস চালাচ্ছেন।

তিনি মালিক সমিতিতে ভর্তি ও রুট পারমিট না নিয়ে গত ১৫/২০ দিন আবারও নতুন করে ৪/৫টি বাস নামানোতে নিয়মনীতি ক্ষুণ্ন হচ্ছে এবং বাস চলাচলে স্বপ্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি হয়েছে। তিনি শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি নির্বাচিত হওয়ায় ক্ষমতার অপব্যবহার করে অস্থীতিশীল পরিবেশ সৃষ্টি করেছেন।

সমিতির নিয়ম মানতে একাধিকবার চিঠি দেয়া হলেও কোনো সদুত্তর না দিয়ে তিনি জোরপূর্বক বাস চালাচ্ছেন। এ কারণে সকাল থেকে আন্তঃজেলা রুটে বাস চলাচল বন্ধ হয়ে পড়েছে।

তবে জেলা মোটরশ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি ওমর ফারুক বলেন, মোটরশ্রমিকের পক্ষ থেকে কোনো সমস্যা নেই। মালিকরাই বাস বন্ধ রেখেছেন। আর আমার সকল কাগজপত্র ঠিক আছে। বিধায় রাস্তায় নামিয়েছি এবং নিয়মিত চলাচল করছে।

নওগাঁ জেলা সড়ক পরিবহন মালিক গ্রুপের সাধারণ সম্পাদক শফিকুল আলম বলেন, ফারুক এন্টারপ্রাইজকে কেন্দ্র করে আমাদের মালিক পক্ষের বাস বন্ধ আছে। তিনি নিজ স্বার্থ চরিতার্থ করতে কোনো কিছুর নিয়মকানুন না মেনে অভ্যন্তরীণ রুট থেকে ঢাকায় বাস চলাচল করাচ্ছেন।

নওগাঁ জেলা প্রশাসক মো. মিজানুর রহমান বলেন, মালিক ও শ্রমিকদের স্থানীয় বিরোধের জেরে স্থানীয় যে যানবাহন আছে তা চলাচল বন্ধ আছে। আমরা দ্রুত নিরসনের ব্যবস্থ গ্রহণ করছি।