রাণীশংকৈলে শ্বশুরবাড়িতে বেড়াতে আসা জামাইয়ের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

হুমায়ুন কবির,রাণীশংকৈল (ঠাকুরগাঁও) প্রতিনিধিঃ ঠাকুরগাঁওয়ের রাণীশংকৈল উপজেলার কুমোরগঞ্জ গ্রামে ১১ জুন শুক্রবার ভোরে শ্বশুরবাড়িতে আসা নূতন জামাইয়ের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে থানা পুলিশ।

শ্বশুর জহিরুল ইসলামের বাড়ির অদূরে পুকুর পাড়ের একটি ছোট সাইজের আমগাছের ডালে ঝুলন্ত এরশাদ আলীর(২৭) লাশ উদ্ধার করা হয়।

পুলিশ ও স্থানিয়সূত্রে জানা গেছে, মাত্র ১১দিন আগে উপজেলার নেকমরদ ইউনিয়নের পারকুন্ডা গ্রামের সিরাজুল ইসলামের ছেলে এরশাদ আলীর সঙ্গে কুমোরগঞ্জ গ্রামের জহিরুল ইসলামের মেয়ে জুঁই আকতারের বিয়ে হয়। এরশাদ রাজমিস্ত্রির কাজ করতেন এবং জুঁই স্থানিয় একটি মাদ্রাসায় পড়তেন।

গত ১০ জুন বৃহস্পতিবার বিকেলে এরশাদ স্ত্রী জুঁইকে নিয়ে শ্বশুরবাড়িতে বেড়াতে আসেন। রাতে খাওয়া দাওয়া করে স্বামী-স্ত্রী একটি ঘরে অবস্থান করেন।

গভীর রাতে স্ত্রী জুই জ্বর  নিয়ে বমি করতে বারান্দায় বের হন। ইতোমধ্যে এরশাদ প্রাকৃতিক কাজ সারতে টয়লেটে যান।এরশাদ টয়লেট থেকে ফিরে না এলে, শ্বশুর,শাশুড়িসহ পরিবারের লোকজন ঐ রাতেই এরশাদকে চারদিকে খুঁজতে বের হয়।শেষ রাতের দিকে তারা বাড়ির অদূরে পুকুর পাড়ের একটি আমগাছের ডালে এরশাদের ঝুলন্ত লাশ দেখতে পায়। খবর পেয়ে থানার সিনিয়র সহ.পুলিশ সুপার তোফাজ্জল হোসেন, ওসি এস এম জাহিদুল ইসলাম, ওসি( তদন্ত) আব্দুল লতিফ শেখ পুলিশ ফোর্সসহ ঘটনাস্থলে এসে এরশাদের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেন।

এ মৃত্যুর কারন সম্পর্কে পুলিশ কিংবা এলাকাবাসি কিছুই বলতে পারেনি। মৃত এরশাদের খালাত ভাই শাহাদত আলি এ মৃত্যুকে আত্মহত্যা বলে মানতে চাননি। এ নিয়ে তিনি একটি লিখিত অভিযোগ থানায় জমা দিয়েছেন মর্মে ওসি জানান। এ ব্যাপারে থানায় একটি ইউডি মামলা হয়েছে।

লাশ ময়না তদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে। সে তদন্তের রিপোর্ট অনুযায়ী পরবর্তি ব্যবস্থা নেয়া হবে মর্মেও ওসি জানান।