জাবিতে তিন দিন ব্যাপী স্বাধীনতা বই মেলা ।

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে মুক্ত চিন্তা, মুক্ত বই এই প্রতিপাদ্যকে ধারণ করে তিন দিনব্যাপী স্বাধীনতা বই মেলা ২০১৯ উদ্বোধন করা হয়েছে।

বুধবার (১৩ মার্চ) দুপুর ১২ টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের কলা ও মানবিকী অনুষদের সামনের মহুয়া চত্বরে প্রধান অতিথি হিসেবে ভারপ্রাপ্ত উপাচার্য অধ্যাপক ড. নূরুল আলম প্রদীপ প্রজ্বলনের মধ্য দিয়ে বইমেলার উদ্বোধন করেন।

বইমেলা উদ্বোধনের পূর্বে অধ্যাপক ড. নূরুল আলম বলেন, ‘আমার খুবই ভালো লাগছে যে এবারের স্বাধীনতা বইমেলা বড় পরিসরে আয়োজিত হচ্ছে। বইয়ের প্রতি বাংলাদেশের লোকদের ভালোবাসা থাকার জন্যই অমর একুশে বইমেলা বাংলা একাডেমি ছড়িয়ে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে ছড়িয়েছে । বাংলা সংসদকে ধন্যবাদ এরকম সুন্দর একটি আয়োজনের জন্য।’

স্বাধীনতা বইমেলার আহ্বায়ক ও বাংলা বিভাগের অধ্যাপক ড. খালেদ হোসাইন বলেন, ‘তথ্যপ্রযুক্তির এই যুগেও বইয়ের প্রয়োজনীয়তা শেষ হয়ে যায় নি। যারা সুযোগের অভাবে বইমেলা যেতে পারে নি তাদের জন্য স্বাধীনতা বইমেলা একটি সুযোগ। এই মেলাকে কাজে লাগিয়ে আমরা দেশের ইতিহাস ও ঐতিহ্য জানতে পারবো।’

বাংলা সংসদ ও বিভাগের সভাপতি অধ্যাপক ড. নাহিদ হকের সভাপতিত্বে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক অধ্যাপক ড. বিশ্বজিত ঘোষ এবং কলা ও মানবিকী অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. মোজাম্মেল হক।

রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. বিশ্বজিত ঘোষ বলেন, ‘আমাকে এখানে বিশেষ অতিথি হিসেবে রাখার জন্য আমি বাংলা সংসদের নিকট কৃতজ্ঞ। এই বইমেলার মাধ্যমে শিক্ষার্থীরা বই কিনবে, দেখবে এবং গন্ধ শুঁকে দেখবে। স্বাধীনতা, মুক্তিযুদ্ধ এবং বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সম্পর্কে জানার জন্য স্বাধীনতা বইমেলা সাহায্য করবে।’

বইমেলা উদ্বোধনের পর বাংলা সংসদের আয়োজনে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়।

প্রসঙ্গত, এবারের বইমেলাতে ৩২টি প্রকাশনী অংশ নিচ্ছে। বইমেলার পাশাপাশি ১৪ মার্চ বিশ্ববিদ্যালয়ের মহুয়া চত্বরে কবিতা ও বাঁশি এবং নাটক ‘মেরাজ ফকিরের মা’ আর শেষ দিন ১৫ মার্চ লোকসঙ্গীত ও নাটক ‘মহুয়া’ মঞ্চস্থ হবে।