২০ ছাত্রীকে ধর্ষণের কথা স্বীকার করলেন শিক্ষক

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জে অক্সফোর্ড হাইস্কুলের ২০ এর অধিক ছাত্রীকে যৌন নির্যাতন ও ধর্ষণের অভিযোগে গ্রেফতারকৃত শিক্ষক আশরাফুল আরিফ ও মদদদাতা প্রধান শিক্ষক রফিকুল ইসলাম জুলফিকারের বিরুদ্ধে পৃথক দু’টি মামলা দায়ের করা হয়েছে। শুক্রবার (২৮ জুন) বিকেলে সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় এই মামলা দু’টি দায়ের করা হয়।

অভিযুক্ত শিক্ষক আশরাফুল আরিফের বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা দায়ের করেন স্কুলের নির্যাতিত সকল ছাত্রীর পরিবার এবং ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে অপর মামলাটি দায়ের করে র‌্যাব। ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে দায়েরকৃত র‌্যাবের মামলাটিতে অনৈতিক কাজে মদদ দেয়ার অপরাধে প্রধান শিক্ষককেও আসামি করা হয়েছে। পরে আসামিদের র‌্যাব-১১ কার্যলয়ে থেকে সিদ্ধিরগঞ্জ থানা হাজতে প্রেরণ করা হয়।

র‌্যাব-১১ অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. আলেপ উদ্দিন জানান, আটককৃত শিক্ষক আশরাফুল আরিফের মোবাইল ফোন ও ল্যাপটপসহ বিভিন্ন ডিভাইস জব্দ করে পঞ্চম শ্রেণি থেকে দশম শ্রেণি পর্যন্ত ২০ জনেরও বেশি ছাত্রীকে ধর্ষণ এবং যৌন নির্যাতনের প্রমাণ পাওয়া গেছে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে অভিযুক্ত শিক্ষক এ বিষয় স্বীকার করেছে। বিস্তারিত তথ্য উদঘাটনের জন্য তাদেরকে আরো জিজ্ঞাসাবাদ প্রয়োজন। আগামীকাল আসামিদের ১০ দিনের রিমান্ডের আবেদন করে আদালতে হাজির করা হবে বলেও জানান তিনি।

এর আগে গতকাল বুধবার নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার সিদ্ধিরগঞ্জ থানার মিজমিজি এলাকায় অবস্থিত অক্সফোর্ড হাইস্কুল থেকে শিক্ষক আশরাফুল আরিফ ও প্রধান শিক্ষক রফিকুল ইসলাম জুলফিকারকে গ্রেফতার করে র‌্যাব তাদের কার্যলয়ে নিয়ে অভিযোগের বিষয়টি তদন্ত শুরু করে। পরে বিষয়টির সত্যতা পায় র‌্যাব।